এবার সমালোচকদের উপযুক্ত জবাব দিলেন সৌম্য

চেনা-অচেনা নম্বর থেকে একের পর ফোন কল। অভিনন্দন বার্তায় মেসেজ বক্সটাও ভরে উঠতে সময় লাগেনি। বিকেএসপি থেকে ফেরার পথে টিম বাসে বসে সেগুলোর কিছু দেখেছেন, কিছু দেখা হয়নি। দুইশ আট রানের ক্যারি থ্রু দ্য ইনিংস দেশের হয়ে প্রথম কোনো ব্যাটসম্যানেরলিস্ট-এ ম্যাচের ডাবল সেঞ্চুরি, দল চ্যাম্পিয়ন- এতসব ভালো অর্জনের পর মঙ্গলবার বোধহয় সবচেয়ে সুখী মানুষ ছিলেন সৌম্য সরকার। বিশ্বকাপের আগে এমন একটা ইনিংস তাকে আরও আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে।

প্রশ্ন-ঃ দেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে লিস্ট-এ-তে ডাবল সেঞ্চুরি।সৌম্য: দেশের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি হওয়ায় ভালো লাগছে। লিগে আমার ইনিংসগুলো বড় হচ্ছিল না। চেষ্টা করছিলাম, ওখান থেকে বের হয়ে এসে ভালো কিছু করার। এই ম্যাচের আগের ম্যাচেই একশ (১০৬) করেছিলাম। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে ওই ম্যাচটা জিতে আমরা শিরোপা রেসে ছিলাম। আজ (মঙ্গলবার) শেষ ম্যাচে জিততেই হতো। আমার পরিকল্পনা ছিল সেট হতে পারলে সোজা ব্যাটে খেলে রান করা। সবকিছু ঠিকঠাক হওয়ায় ভালোভাবে শেষ করতে পেরেছি। একসাইটিং লাগছে।

প্রশ্ন-ঃ কখন মনে হয়েছিল ডাবল সেঞ্চুরি করতে পারবেন? সৌম্য: দেড়শ রান হওয়ার পর মনে হয়েছে, চেষ্টা করলে দুইশ করা সম্ভব। বড় চ্যালেঞ্জ ছিল মনোযোগ ধরে রাখা। সেটা পেরেছি।

প্রশ্ন-ঃ শেষ দুই ম্যাচের আগে রানে ছিলেন না। সমালোচনা হচ্ছিল। শেষ করলেন সেঞ্চুরি, ডাবল সেঞ্চুরি দিয়ে। সৌম্য: হাসি । এতদিন যারা সমালোচনা করছিলেন, তারাই এখন ভালো বলছেন। হাসি । এটা আমি উপভোগ করছি।

পাঠকের মতামত