অবশেষে চালু হতে যাচ্ছে দেশের প্রথম হাইওয়ে এক্সপ্রেস

জুনে চালু হচ্ছে রাজধানী ঢাকা থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত দেশের প্রথম হাইওয়ে এক্সপ্রেস। অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে পদ্মা সেতু চালুর আগে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ এই ছয়লেনের সড়কটি ব্যবহার করতে পারবেন। ৬ হাজার ৭০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সড়কটিতে ছোটবড় ৩১টি সেতুর সাথে থাকছে ৪৫টি কালভার্ট, ৬টি ফ্লাইওভার ও ৪টি রেল ওভারপাসসহ একাধিক আধুনিক সুবিধা। দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে সড়কপথে যোগাযোগের পরিবর্তন আনতে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ৫৫ কিলোমিটার সড়ক দুইলেন থেকে ছয়লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প হাতে নেয় সরকার।

পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়কের পরবর্তী অংশে ভারি যানবাহনের জন্য পৃথক চার লেন ছাড়াও রয়েছে হালকা যানবাহনের জন্য আলাদা দুই লেন। এছাড়া ঢাকা ও পূর্বাঞ্চলে যাত্রী, পণ্য পরিবহন নিরাপদ, সময় সাশ্রয়ী ও আরামদায়ক করতে সড়কটিতে রয়েছে ওভারপাস, আন্ডারপাস, ফ্লাইওভারসহ আধুনিক সব সুবিধা। সড়কটি চালু হলে যোগাযোগ ব্যবস্থায় নিরাপদ সড়কের দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে বলে মনে করেন বিশিষ্টজনেরা। মাদারীপুরের শিবচর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিম মিয়া বলেন, এই ব্যবস্থাটি চালু হলে চিকিৎসার জন্য ঢাকা গমনকারীরা সবচেয়ে বেশি সুবিধা পাবেন।

মাদারীপুরের সচেতন নাগরিক কমিটির সদস্য শাহাদাৎ হোসেন লিটন বলেন, নানা দিক দিয়ে যে যোগাযোগ ব্যবস্থা তৈরি হবে তাতে সব শ্রেণির মানুষই উপকৃত হবেন। এতে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের ব্যাপক আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ঘটবে বলে মনে করেন সড়ক বিভাগের এক কর্মকর্তা। মাদারীপুর সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ঢাকা খুলনা এক্সপ্রেস হাইওয়ে উন্মুক্ত হওয়ার পরপরই পদ্মা ব্রিজ উন্মুক্ত হবে বলে আমরা আশা করি। একাধিক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৪ ইঞ্জিনিয়ারিং কন্সট্রাকশন ব্রিগেড তত্ত্বাবধান করছে পুরো প্রকল্পটি। আগামী জুনে সড়কটি জনসাধারণের জন্য খুলে দেয়া হবে জানিয়েছে সড়ক বিভাগ।

পাঠকের মতামত