মাদক সেবনের ফলে ইংল্যান্ডের ওপেনার ‘অ্যালেক্স হেলস’ নিষিদ্ধ

ডোপ টেস্টে পজিটিভ হওয়ায় নিষিদ্ধ হয়েছেন ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ দলে থাকা ওপেনার অ্যালেক্স হেলস। বিশ্বকাপ দল ঘোষণার সময়টায় নির্বাচকরা ডোপ টেস্টের ফলাফল হাতে পাননি। দ্বিতীয়বারের মতো ডোপ টেস্টে পজিটিভ হওয়ায় ২১ দিনের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে হেলসকে। বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাওয়ার পরপরই ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে নটিংহাম্পশায়ারের রয়্যাল লন্ডন কাপ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছিলেন ইংলিশ এই ব্যাটসম্যান।

২০১৩ সালে নিষিদ্ধ মাদক নিয়ে মারা গিয়েছিলেন সারের ক্রিকেটার টম মেয়নার্ড। তারপর থেকেই প্রতি মৌসুমের শুরু এবং শেষে সকল পেশাদার পুরুষ ক্রিকেটার এবং কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা নারী ক্রিকেটারদের ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)। প্রথমবার ডোপ টেস্টে পজিটিভ হলে খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্যগত দিকের বিষয়গুলো সামনে এনে তাদের পরামর্শ এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে সতর্ক করা হয়। দ্বিতীয়বার এমন হলে তিন সপ্তাহের জন্য নিষিদ্ধ এবং বার্ষিক বেতন থেকে ৫ ভাগ কেটে রাখা হয়। আর তৃতীয়বার ধরা পড়লে কঠিন শাস্তির নিয়ম রয়েছে ইংলিশ কাউন্টিতে।

বিশ্বকাপ শুরু হবে আগামী ৩০ মে। যদিও হেলস শাস্তি কাটিয়ে বিশ্বকাপের আগেই দলে ফিরতে পারেন। তবে তিনি ইংল্যান্ড দলে প্রথম পছন্দ নন। তাকে বিশ্বকাপ দলে নেয়া হয়েছে রিজার্ভ ব্যাটসম্যান হিসেবে। এর আগে ব্রিস্টলে মারামারি কাণ্ডে বেন স্টোকসের সঙ্গে জড়িয়েছিল তার নামটিও। শৃঙ্খলার বিষয়টি বিবেচনায় আনলে দলে জায়গা হারিয়েও ফেলতে পারেন হেলস। কেননা ২৩ মে পর্যন্ত আইসিসির অনুমোদন ছাড়াই বিশ্বকাপ স্কোয়াডে পরিবর্তন আনতে পারবে দলগুলো।

পাঠকের মতামত