সুবীর নন্দীর মস্তিষ্কের অবস্থা ভালো নয়, সংকটাপন্ন অবস্থায় রয়েছেন

একুশে পদক পাওয়া দেশবরেণ্য জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দী হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন। তার শারীরিক অবস্থা এখনো সংকটাপন্ন। মস্তিষ্কের অবস্থা ভালো না। ফুসফুসের প্রদাহ নিয়ে ঝুঁকি এখনো রয়েই গেছে। জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের জাতীয় সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন আজ শনিবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে বিষয়টি জানিয়েছেন। সুবীর নন্দী হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন।

দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে এই শিল্পী অসুস্থ। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. তৌফিক এলাহির তত্ত্বাবধানে তিনি চিকিৎসাধীন। সিএমএইচের পাশাপাশি সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন বলে জানান সামন্ত লাল সেন। তিনি বলেন, ‘সুবীরের মস্তিষ্কের সমস্যা কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হলেও ফুসফুসের প্রদাহ মোটেও ভালো না। আজ তাকে এক ব্যাগ রক্ত দেওয়া হয়েছে। সিঙ্গাপুর হাসপাতালেও চিকিৎসার যাবতীয় প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। সব মিলিয়ে এটা বলতে হয়, তার শারীরিক অবস্থা মোটেও ভালো না।’

সুবীর নন্দী গত রবিবার রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হন। এর পরই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে আনার পরই তার মারাত্মক কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়েছে। সিএমএইচের চিকিৎসক ব্রিগেডিয়ার তৌফিকের তত্ত্বাবধানে রয়েছেন তিনি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুবীর নন্দী দীর্ঘদিন ডায়াবেটিস রোগে ভুগছেন। তার হার্টে বাইপাস অপারেশন হয়েছে। কিডনির সমস্যা আছে। পহেলা বৈশাখের রাতে সিলেট থেকে ঢাকায় ফেরার পথে ট্রেনে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন সুবীর নন্দী। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী ও কন্যা। এর পরই তাকে রাজধানীর সিএমএইচে নেওয়া হয়। হাসপাতালটির জরুরি বিভাগেই হার্ট অ্যাটাক করেন এই শিল্পী। এরপর তাকে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হয়।

সুবীর নন্দী ৪০ বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে আড়াই হাজারেরও বেশি গান গেয়েছেন। স্বীকৃতি হিসেবে পাঁচ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।
১৯৫৩ সালের ১৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার নন্দীপাড়ায় সুবীর নন্দীর জন্ম। তিনি সিলেট বেতারে প্রথম গান করেন ১৯৬৭ সালে। এরপর ঢাকা রেডিওতে সুযোগ পান ১৯৭০ সালে। রেডিওতে তার প্রথম গান ‘যদি কেউ ধূপ জ্বেলে দেয়’। বেতার থেকে টেলিভিশন, তারপর চলচ্চিত্রের গান গেয়েছেন সুবীর নন্দী। ১৯৮১ সালে তার প্রথম একক অ্যালবাম ‘সুবীর নন্দীর গান’ প্রকাশিত হয়।

চলচ্চিত্রে তিনি প্রথম গান করেন ১৯৭৬ সালে ‘সূর্যগ্রহণ’ চলচ্চিত্রে। ১৯৭৮ সালে মুক্তি পায় আজিজুর রহমানের ছবি ‘অশিক্ষিত’। এ সিনেমায় সাবিনা ইয়াসমিন আর সুবীর নন্দীর কণ্ঠে ‘মাস্টার সাব আমি নাম দস্তখত শিখতে চাই’ গানটি তুমুল জনপ্রিয়তা পায়।

পাঠকের মতামত