ক্রিকেটের অশুভ শক্তি থামিয়ে দিলো সোয়াত টিম, র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা

বিপিএল ম্যাচ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হচ্ছিল। রংপুর রাইডার্সের হয়ে মাঠে ব্যাট করছিলেন ক্রিস গেইল। দৃষ্টিনন্দন চার-ছয়ে গ্যালারি ভর্তি দর্শক তখন আনন্দে মাতেয়ারা। এমন সময় স্টেডিয়াম যাওয়ার সড়ক পথে মুহুর্মুহু বোমা বিষ্ফোরণ ঘটায় ক্রিকেটের শত্রুরা। কিন্তু মুহূর্তের মধ্যেই অশুভ শক্তিকে থামিয়ে দিলো সোয়াত টিম, র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা।

না, সত্যিকারের কোনও জঙ্গি হামলার ঘটনা এটা নয়। আসলে চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিতব্য বিপিএল ম্যাচকে সামনে রেখে বুধবার (২৩ জানুয়ারি) বিকালে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা প্রস্তুতিমূলক মহড়া অনুষ্ঠিত হয়েছিল এভাবে। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম ছাড়াও নগরের পাঁচ তারকা হোটেল রেডিসন ব্লু, জাকির হোসেন সড়কের ডায়াবেটিস হাসপাতাল মোড়, সাগরিকা মোড়সহ স্টেডিয়াম যাওয়ার সড়ক পথে এ নিরাপত্তা মহড়া অনুষ্ঠিত হয়। মহড়ায় র‌্যাব, পুলিশ, সোয়াত টিম, এপিবিএন ও ফায়ার স্টেশনের প্রায় ৫০০ জন সদস্য অংশ নেন।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম জানান, হোটেল থেকে মাঠে খেলোয়াড়দের আসা-যাওয়া থেকে শুরু করে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তায় কাজ করবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিপিএল ঘিরে নগরজুড়ে পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। পুলিশ ও র‌্যাবের পাশাপাশি সোয়াট, বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল, ফায়ার সার্ভিস ইউনিটও প্রস্তুত থাকবে। সবমিলিয়ে পাঁচ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য বিপিএল ঘিরে মাঠে থাকবে।

তিনি জানান, এর আগেও জিম্বাবুয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন দলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। এরপরও নিরাপত্তায় কোনো ত্রুটি রয়েছে কি না কিংবা কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তা কীভাবে রোধ করা যাবে, এ জন্য মহড়ার আয়োজন করা হয়েছে।

পাঠকের মতামত